ঢাকামঙ্গলবার, ৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, রাত ৩:৩৫
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অভাবের তাড়নায় সন্তানকে বিক্রি করতে চান মা

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি
আগস্ট ১৩, ২০২২ ৫:৩৩ অপরাহ্ণ
পঠিত: 122 বার
Link Copied!

স্বামী ছেড়ে গেছেন অনেক দিন আগে। থাকেন বাবার বাড়িতে সেখানেও অভাব নিত্যসঙ্গী। ঠিকমতো কাজ করতে পারেন না। নিজেও বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। খেয়ে না খেয়ে দিন পার করতে হয়। এ অবস্থায় সন্তানকে মানুষ করতে হিমশিম খাচ্ছেন।

বলছিলাম রামচন্দ্র চাকমার কথা। বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার একটি বাজারে নিজের ৬ বছরের সন্তান রামকৃষ্ণ চাকমাকে বিক্রি করতে আনেন। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

জানা গেছে, খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার একটি বাজারে বৃহস্পতিবার রামচন্দ্র চাকমা তার কলিজার টুকরা ছেলেকে বিক্রি করতে আনেন। এ সময় তিনি ছেলের দাম চান ১২ হাজার টাকা। পরে স্থানীয় এক জনপ্রতিনিধি হস্তক্ষেপ করেন বিক্রি না করার জন্য। বাজার থেকে ছেলেসহ মাকে কমলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুনীল চাকমার কাছে নিয়ে যায়। চেয়ারম্যান তাদের বুঝিয়ে পরিবারের কাছে ফেরত পাঠান। পরে ছেলেকে নিয়ে বাড়ি ফেরেন রামচন্দ্র চাকমা।

রামচন্দ্র চাকমা খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার ভাইবোনছড়া পাকোজ্জ্যাছড়ি গ্রামের কালাবো চাকমার মেয়ে। স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ হওয়ার পর থেকে তিনি ছেলেকে নিয়ে বাবার বাড়িতে থাকেন।

কমলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুনীল চাকমা বলেন, ছেলেকে বাজারে বিক্রি করতে এনেছেন এক মা। বিষয়টি জানার পর আমি ছেলেসহ মাকে অফিসে নিয়ে আসি। পরে পরিবারের জিম্মায় তাদের হস্তান্তর করি।

ছেলের মা রামচন্দ্র চাকমা বলেন, অভাবের সংসার। স্বামী ছেড়ে চলে গেছে অনেক দিন আগে। কোনো যোগাযোগ নেই তার সঙ্গে। ঘরে কোনো খাবার নেই। আমি শারীরিকভাবে অসুস্থ। ওষুধ কেনার টাকা নেই। কীভাবে বাঁচব ছেলেকে নিয়ে? তাই ছেলেকে ভালো পরিবারে দিতে চেয়েছিলাম।

ছেলেকে বিক্রি করতে আনার বিষয়টি জানার পর শুক্রবার পারুল চাকমা ও তার ছেলের খোঁজ নিতে তাদের বাড়িতে জান সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা। খোঁজ-খবর নিয়ে তাদের আগামী ছয় মাসের খাবার সামগ্রী ও নগদ অর্থ দিয়ে আসেন। তাদের জন্য একটি সরকারি ঘরের ব্যবস্থা করে দেবেন বলেও আশ্বাস দেন।

তিনি বলেন, এ সময়ে এসে এমন ঘটনা খুবই দুঃখজনক। ছেলেকে বিক্রি করতে আনার বিষয়টি আমি জানার পর তাদের দেখতে এসেছি। পারুল চাকমা খুব বেশি অভাবে থাকার কারণে এই কাজটি করেছেন বলে জানতে পেরেছি। ছেলেটিকে কোনো সরকারি শিশু সদনে পড়ালেখার জন্য পাঠানো যায় কি না দেখব।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।