ঢাকাশুক্রবার, ৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ৬:০৭
আজকের সর্বশেষ সবখবর

টিউশনি করে লেখাপড়া করা সুমাইয়া পুলিশ নিয়োগে প্রথম

জেলা প্রতিনিধি
এপ্রিল ২১, ২০২২ ১১:৩০ পূর্বাহ্ণ
পঠিত: 94 বার
Link Copied!

সুমাইয়া আকতারের বাবা রমজান আলী দুই সন্তান ও স্ত্রী রেখে নিরুদ্দেশ হন অনেক বছর আগে। মা কখনও অন্যের বাড়িতে আবার কখনও শ্রমিকের কাজ করে সংসারের হাল ধরেন। আর ছোট ভাই লেখাপড়া ছেড়ে দিয়ে গৃহ নির্মাণ শ্রমিকের সহকারীর কাজ করে সংসার চালান।

কিন্তু হাল ছাড়েননি সুমাইয়া। বড় হবার স্বপ্ন নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। স্কুল জীবন থেকেই গ্রামের ছোট ছোট শিশুদের টিউশনি করে ২০২১ সালে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেন তিনি। সেই সুমাইয়া আকতার পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগে মেয়েদের মধ্যে ১ম স্থান অর্জন করেছেন। মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা ২৫৬ প্রার্থীর মধ্যে প্রথমেই সুমাইয়া আকতারের নাম ঘোষণ করেন নিয়োগ কমিটির সভাপতি ও বগুড়ার পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী।

বুধবার (২০ এপ্রিল) রাত ১১টায় বগুড়া পুলিশ লাইন্স অডিটোরিয়ামে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল পদে চুড়ান্তভাবে নির্বাচিত ৮০ পুরুষ ও ১৪ নারীর নাম ঘোষণা করা হয়। মেধা তালিকায় ছেলেদের মধ্যে ১ম হয়েছেন শিবগঞ্জের রাব্বী হাসান। তিনিও গরীব কৃষকের সন্তান।

চাকরি পেয়ে গাবতলীর মনিষা, শেরপুরের আলমগীর জানান, তারা মাত্র ১২০ টাকা খরচ করে আবেদন করেছিলেন। কোনো প্রকার ঘুষ এবং তদবীর ছাড়া পুলিশের চাকরি পেয়েছেন। এতে তারা খুব খুশি।

বগুড়ার পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, ‘চাকরি নয়, সেবা’—এই মূলমন্ত্র নিয়ে ২৯ মার্চ বগুড়া জেলা পুলিশ লাইনস-এ ট্রেনিং রিক্রুট কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষা শুরু হয়। ৩ হাজার ৬০ আবেদনকারীর মধ্যে ৯০০ জনকে প্রাথমিক নির্বাচিত করা হয়। সেখান থেকে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন ২৫৬। এরপর সেখান থেকে ৮০ পুরুষ ও ১৪ নারী বাংলাদেশ পুলিশের গর্বিত সদস্য হিসেবে চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণ হন। যাদের অধিকংশ সমাজে অনগ্রসর ও সুবিধা বঞ্চিত পরিবারের সদস্য।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।