ঢাকাবুধবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, রাত ৯:১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ক্যামেরা দেখে পাপারাজ্জিদের কী বলল ছোট্ট তৈমুর

বিনোদন ডেস্ক
এপ্রিল ২৪, ২০২২ ১১:৩১ পূর্বাহ্ণ
পঠিত: 228 বার
Link Copied!

কারিনা কাপুর ও সাইফ আলি খানের বড় ছেলে তৈমুর আলি খান। বয়স মাত্র পাঁচ। তার চালচলনে নবাবি ভাব। পাপারাজ্জিরও সে এক সময়ের বড় প্রিয়। কিন্তু বড় হতেই ক্যামেরা দেখলে মাঝে মাঝে রেগে যায় সে। এবার পাপারাজ্জিকে দেখে কি গালাগালই করে ফেলল ছোট্ট তৈমুর? একটি ভিডিও ভাইরাল হতেই এমনটি মনে করছেন অনেকে।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে মা কারিনা ও পরিচারিকার সঙ্গে বাড়ির নিচে দাঁড়িয়ে রয়েছে তৈমুর। ভাই জেহ খেলা করছে গাড়িতে চেপে। হঠাৎ পাপারাজ্জিদের দেখে চিৎকার করে ছবি তোলা বন্ধ করতে বলে সে। কিন্তু যেভাবে বলেছে তা পছন্দ হয়নি নেটিজেনদের। তাদের অনেকেই মনে করছেন, তৈমুর নাকি বলেছেন, ‘বন্ধ কর শা*। বন্ধ কর’।

নেটিজেনদের এমন মনে হলেও তৈমুর আসলে গালাগাল করেনি। সে বলেছে, ‘বন্ধ করো দাদা, বন্ধ করো দাদা’। বাঙালিদের মতো মরাঠিদের দাদা বলার চল রয়েছে। সে কারণেই দাদা শব্দ প্রয়োগ করেছে তৈমুর— এমন সাফাই দিয়েছেন কারিনা ভক্তরা। তবে তার কথা বলার ধরন যে মোটেও শিশুসুলভ ছিল না তা অনেক কারিনা ভক্তও মেনে নিয়েছেন। তবে তাদের একটি বক্তব্য রয়েছে। পাপারাজ্জির দিকে আঙুল তুলে তারা বলেছেন, বারবার বারণ করা সত্ত্বেও কেন সব জায়গায় ছবি তোলার জন্য পৌঁছে যায় পাপারাজ্জিরা। এমন অনধিকার চর্চা কি আসলে নৈতিক? উঠেছে সে প্রশ্নও।

আরও একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে তৈমুরের। সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে— মা কারিনা হাত ধরে টানলেও ন্যানির কাছে থাকতেই পছন্দ করছে তৈমুর। কিছুতেই যেতে চাইছে না মায়ের কাছে। যা দেখে আবারও নেটিজেন দুষেছে কারিনা কাপুর খানকে। বাচ্চার সঙ্গে বন্ডিং তৈরি করতে পারেননি তিনি— এমন অভিযোগও আনা হয়েছে মন্তব্য-বক্সে।

কিছুদিন আগে কারিনার গাড়ি পিষে দিয়েছিল এক চিত্র সাংবাদিকের পা। ঘটনায় ক্ষমা না চাইলেও ভয় পেতে দেখা গিয়েছিল কারিনাকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় হয়েছিল নিন্দা। এবার তৈমুরের ওই ভাইরাল ভিডিও দেখে ক্ষোভ যেন কমতেই চাইছে না নেটপাড়ায়।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।